জিম্মি ইস্যুতে হামাস-ইসরায়েল নতুন চুক্তি, মধ্যস্থতায় কাতার – RBC

জিম্মি ইস্যুতে হামাস-ইসরায়েল নতুন চুক্তি, মধ্যস্থতায় কাতার

প্রকাশ: জানুয়ারি ১৭, ২০২৪

আরবিসি নিউজ, ডেস্ক:

গাজা ইস্যুতে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের সঙ্গে নতুন একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে কাতার। এর আওতায় ফিলিস্তিনি বেসামরিক নাগরিকদের ওষুধ এবং মানবিক সহায়তা প্রদানের বিনিময়ে গাজায় ইসরায়েলি জিম্মিদের কাছে ওষুধ সরবরাহ করা হবে। কাতার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিযে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ খবর জানিয়েছে। কাতার এবং ফ্রান্সের মধ্যস্থতায় স্থানীয় সময় মঙ্গলবার দু’পক্ষের প্রতিনিধিদের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছে, এই চুক্তির মাধ্যমে গাজায় ইসরায়েলি বন্দীদের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহের বিনিময়ে গাজা উপত্যকার সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে মানবিক সহায়তার সঙ্গে ওষুধ পৌঁছে দেওয়া হবে। তবে গাজায় বেসামরিক মানুষদের কী ধরনের ও কী পরিমাণে সহায়তাসামগ্রী দেওয়া হবে, সেই বিষয়ে কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কিছুই জানাননি। ওষুধ ও সাহায্য বুধবার দোহা ছেড়ে গাজায় পাঠানোর আগে মিসরে যাবে। তারপর রাফাহ ক্রসিং পার হয়ে সেগুলো গাজায় পৌঁছাবে। এর আগে ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ক্রাইসিস সেন্টার প্রধান ফিলিপ্পে লালিয়ত জানান, কয়েক সপ্তাহ ধরে আলাপ-আলোচনার পর এই চুক্তিতে পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এ চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক মুখপাত্র জন কিরবি এ প্রসঙ্গে বলেন, আমরা আশা করছি, এই সমঝোতা আরও বেশি জিম্মির মুক্তির পথ প্রশস্ত করবে। ৭ অক্টোবর হামাসের আকস্মিক হামলায় ইসরায়েলের ১২শ’ জন নিহত হয় এবং ২৪০ জনেরও বেশি ইসরায়েলিকে জিম্মি করা হয়। ভুক্তভোগীদের পরিবারের জন্য কাজ করা অ্যাডভোকেসি গ্রুপ হোস্টেজ অ্যান্ড মিসিং ফ্যামিলি ফোরাম বলছে, বন্দিদশায় থাকা প্রতিটি দিন তাদের জীবন এবং স্বাস্থ্যকে আরও বিপন্ন করছে। ইসরায়েলি বাহিনীর ধারাবাহিক হামলায় ১০০ দিনে গাজায় নিহত হয়েছেন ২৪ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি, আহত হয়েছেন অন্তত ৬০ হাজার। ২৫ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঘোষিত এক মানবিক বিরতির সাত দিনে মোট ১০৮ জন জিম্মিকে মুক্তি দিয়েছে হামাস। বাকি ১৩২ জন এখনও তাদের হাতে আটক রয়েছে।