সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট হতে পারে ফেব্রুয়ারিতে – RBC

সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট হতে পারে ফেব্রুয়ারিতে

প্রকাশ: জানুয়ারি ১৬, ২০২৪

আরবিসি নিউজ, ডেস্ক:

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত ৫০টি নারী আসনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী সপ্তাহের মধ্যে এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে বলে মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) জানিয়েছেন ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ। ইসির এই কর্মকর্তা জানান, সংরক্ষিত নারী আসন ছাড়াও প্রায় ৫০০ উপজেলার মধ্যে প্রথম ধাপে শ’খানেক উপজেলার ভোটের তারিখ ঘোষণা করা হতে পারে। অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, “দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের তফসিলের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হচ্ছে।” তিনি বলেন, “রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ, ভোটার তালিকা তৈরিসহ প্রাথমিক কাজ গুছিয়ে রাখছি। কমিশন সভায় সিদ্ধান্ত হলে তফসিল দেওয়া হবে। চলতি সপ্তাহে বা আগামী সপ্তাহে তফসিল হলে ফেব্রুয়ারিতে ভোটের তারিখ রাখা হতে পারে।” যেভাবে হয় সংরক্ষিত আসনের ভোট সংসদের সাধারণ ৩০০ আসনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা সংরক্ষিত আসনের নির্বাচনের ভোটার হন। বিদ্যমান আইন অনুযায়ী, সরাসরি ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে নারী আসন বণ্টন করা হয়। এ নির্বাচনে ভোটের জন্য একটি দিন রাখা হলেও ফল জানা যায় তার আগেই। ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসনের বিপরীতে দল ও জোটগতভাবে সমান সংখ্যক প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়া হয় বলে প্রত্যাহারের সময়সীমা পার হওয়ার দিনই তাদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হতে পারে। গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ২৯৯ আসনে ভোটগ্রহণ হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগ ২২৩টি, জাতীয় পার্টি ১১টি, জাসদ ১টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ১টি, কল্যাণ পার্টি একটি, স্বতন্ত্র ৬২টি আসন পেয়েছে। আর একজন প্রার্থীর মৃত্যুতে নওগাঁ-২ আসনে ভোট হয়নি। সেখানে ভোট হবে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে এবার আওয়ামী লীগ ৩৮টি (নৌকা প্রতীকে জয়ী জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির দুইজনসহ), জাতীয় পার্টি দুটি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জোটভুক্ত হয়ে ১০টি সংরক্ষিত আসন পেতে পারে। সরাসরি নির্বাচনে ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, কল্যাণ পার্টি একটি করে আসন পাওয়ায় সংরক্ষিত নারী আসন না পেলেও স্বতন্ত্ররা কোথাও যোগ দিলে তখন সমীকরণ পাল্টাবে।