আশুলিয়ায় ক্লুলেস হত্যাকান্ডের মূলহোতাসহ ২ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। – RBC

আশুলিয়ায় ক্লুলেস হত্যাকান্ডের মূলহোতাসহ ২ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪।

প্রকাশ: ডিসেম্বর ১৩, ২০২৩

নাজমুল হক ইমু, আশুলিয়া:

আশুলিয়ার ক্লুলেস হত্যাকান্ডের মূলহোতা এনামুল সানা সহ ০২ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। আশুলিয়ার শিমুলিয়া এলাকার বংশাই নদীতে ভাসমান অজ্ঞাতনামা নারীর লাশ উদ্ধারের পর র‌্যাব প্রযুক্তির সহায়তায় মৃতদেহ সনাক্তকরণ এবং ক্লুলেস হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনপূর্বক হত্যাকান্ডের মূলহোতা এনামুল সানা সহ ০২ জনকে ব্যবহৃত আলামতসহ আশুলিয়া থেকে গ্রেফতার করেন। গত ০৯ ডিসেম্বর আশুলিয়ার বংশাই নদী থেকে অজ্ঞাতনামা এক নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ, পরে র‌্যাব-৪ এর গোয়েন্দা দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঐ নারীর নাম ও পরিচয় সনাক্ত করতে সক্ষম হয় এবং নিশ্চিত হয় যে ভাসমান এই মৃতদেহটি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার রঘুনাথপুর দোলাপাড়া গ্রামের আব্দুল ওয়ারেছ এর মেয়ে রুবিনা খাতুন। এই ঘটনায় ভিকটিমের ভাই বাদী হয়ে গত ১০ ডিসেম্বর আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

 

নৃশংস এই হত্যাকান্ডটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে । হত্যাকান্ডের প্রকৃত ঘটনার রহস্য উন্মোচন ও জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে‌ র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল আশুলিয়ার টেংগুরী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে এনামুল সানা ও তার সহযোগী সোহাগ রানাকে গ্রেফতার করে। উদ্ধার করা হয় ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল। গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ভিকটিম রুবিনা খাতুন নরসিংদী জেলার পলাশ এলাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকুরী করতেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিকটিমের পরিচয় হয় এবং এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি হয়। গ্রেফতারকৃত এনামুল পরিবারসহ আশুলিয়ায় ভাড়া বাসায় বসবাস করত। রুবিনাকে অধিক বেতনে অন্যত্রে চাকুরী দেয়ার মিথ্যা আশ্বাস দেখিয়ে আশুলিয়ায় নিয়ে আসেন , এবং কয়েকদিন তার বাসায় রেখে বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধ মেলামেশা করেন, পরে রুবিনা বিবাহের চাপ দিলে পরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটায়। এ সময় এনামুল তার পরিবারকে কৌশলে দেশের বাড়িতে পাঠায় দেন। ঘটনা ধামাচাপা দিতে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু সোহাগসহ পরিকল্পনা করে লাশ নদীতে ফেলে দেয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।