এশিয়ান গেমসকে ঘিরে অর্থনীতি চাঙ্গা করতে চায় চীন – RBC

এশিয়ান গেমসকে ঘিরে অর্থনীতি চাঙ্গা করতে চায় চীন

প্রকাশ: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২৩

ডেক্স নিউজ:

চীনের হাংজুতে পর্দা উঠল ১৯তম এশিয়ান গেমসের। এ আসরকে কেন্দ্র করে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চাইছে বেইজিং। এশিয়ান গেমসকে ঘিরে ব্যস্ততা বেড়েছে চীনা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর। আগামী ৮ অক্টোবর পর্যন্ত স্থায়ী হওয়া এ আয়োজনের স্পন্সরশিপ নিয়েছে ১৭০টিরও বেশি চীনা ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান। রয়েছে আলিবাবা গ্রুপ হোল্ডিং, ক্যানন, গিলি অটো ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড কমার্শিয়াল ব্যাংক অব চায়নার নাম। পাশাপাশি রয়েছে উদীয়মান ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান। এশিয়ান গেমসকে কেন্দ্র করে সম্প্রসারণ করছে অর্থনৈতিক তৎপরতা। নিক্কেই এশিয়া। চীনের চেচিয়াং প্রদেশের রাজধানী হাংজু। প্রদেশজুড়েই রয়েছে বেসরকারি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। অবশ্য রাজনৈতিকভাবেও প্রদেশের গুরুত্ব প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গেও জড়িত। শি জিনপিং ২০০২-০৭ পর্যন্ত প্রদেশটির নেতা ছিলেন। বর্তমান সময়েরও একাধিক নেতা এসেছেন প্রদেশটি থেকে। স্বাভাবিকভাবেই শহরের অর্থনৈতিক তৎপরতাও চোখে পড়ার মতো। তবে এশিয়ান গেমস সুযোগে তা আরো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এশিয়ান গেমসে অগমেন্টেড রিয়ালিটি (এআর) গ্লাস সরবরাহ করবে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান রোকিড। নিরাপত্তা ও পর্যবেক্ষণের জন্য কাজ করবে প্রতিষ্ঠানটি। বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের বাইরেও রোকিডের গ্লাসের মধ্যেই ব্যবহার হচ্ছে ঘরোয়া বিনোদনে। বিশ্বব্যাপী ৮০টির বেশি দেশে ব্যবসা পরিব্যপ্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। চীনে বাজারের ৫০ শতাংশ রয়েছে দখলে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী আগামী বছরের মধ্যে উত্তর আমেরিকা, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার বাজারে ব্যবসা আরো বাড়াতে সংকল্পবদ্ধ। ডিপ রোবোটিকস নামে আরো একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যারা রোবট কুকুর ব্যবহার করে মাটির নিচে বিদ্যুৎ সরবরাহ ও নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ করে। ফলে শ্রমিকদের ওপর থেকে ঝুঁকি সরে যাবে। ডিপ রোবোটিকস প্রতিষ্ঠিত হয় ২০১৭ সালে জু কিউগুও এবং লি চাওয়ের মাধ্যমে। চতুষ্পদী রোবটগুলোয় ক্যামেরা ও সেন্সর যুক্ত। কোম্পানিটি খুব অল্প সময়ের মধ্যেই চীনের বাজারে নিজেদের ছড়িয়ে দিয়েছে। কুয়াই-ই অন্য একটি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান। রেডি-টু-ইট খাবার সরবরাহ করে ভেন্ডিং মেশিনের মাধ্যমে। খাদ্যতালিকায় রয়েছে বিফ, রাইস ও সি-ফুড নুডলস। কোম্পানির মেশিন স্থাপিত হয়েছে পাঁচটি ভেন্যুতে। প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা চেন শিয়াওচিয়াং বলেছেন, ‘‌খাবারের দিক থেকে আমাদের পার্থক্য হলো খাবারের মানে। চীনের অনেক কুইজিনের সঙ্গে পরিচিত হবেন গ্রাহকরা।’ কুয়াই-ইর প্রতিটি ভেন্ডিং মেশিন ৪০টি পর্যন্ত বাক্স সরবরাহ করতে পারে, যা বের হওয়ার আগে উত্তপ্ত হয়। স্মার্টফোনের অ্যাপ ব্যবহার করেই অর্ডার করা যায়। বিক্রির তথ্য ও নিয়ন্ত্রণ থাকে কোম্পানির হাতে। গত বছর কুয়াই-ইর ভেন্ডিং মেশিন ব্যবহার হয়েছে অফিস বিল্ডিং, হাসপাতাল, কলেজ ও ট্রেন স্টেশনে। কিন্তু তা সীমাবদ্ধ ছিল হাংজুর সীমার মধ্যেই। উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে চায় কার্যক্রম। এর মধ্যে তিন বছরের লক্ষ্যমাত্রা হাতে নেয়া হয়েছে। কভিড-১৯ মহামারীর কারণে এবারের এশিয়ান গেমস অনুষ্ঠিত হলো এক বছর পর। সেখানে অংশগ্রহণ করবে ৪৫টি দেশ থেকে আসা প্রায় ১২ হাজার খেলোয়ার। আসরে থাকবে ৪০টি খেলা। সেদিকে নজর রেখে দেশটিতে উদ্যোক্তারা নিজেদের ব্যবসা সম্প্রসারণ করছে। প্রযুক্তি, খাদ্য, শিল্পোৎপাদন ও বিনোদন খাতে নিজেদের স্বাতন্ত্র্য তুলে ধরছে। নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কামাল দাহাল ও সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করেন। এ সময় চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তারা। ২০১১ সালে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর প্রথমবার চীন সফরে যাচ্ছে বাশার আল আসাদ। তবে এশিয়ার উন্নত দেশগুলোর প্রধানরা যোগ দেবেন কিনা, তা নিশ্চিত নয়। যদিও এখন পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী হান ডাক-সু যোগ দেবেন বলে কথা রয়েছে। শি জিনপিং গত বুধবার ইয়ু শহর সফর করেন। শিল্পোৎপাদনের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত শহরটি। সেখান থেকে পণ্য গিয়ে বিক্রি হয় দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে। স্থানীয় ব্যবসাগুলো এ সুযোগে তাদের প্রভাব সম্প্রসারণে ব্যস্ত সময় পার করছে। অর্থনৈতিক অস্থিরতার মধ্য দিয়ে অতিক্রম করছে চীন। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চাহিদা কমে গেছে। এমন সময়ে এশিয়ান গেমসের হাত ধরে অর্থনীতি চাঙ্গা হওয়ার আশাবাদ ফুটে উঠেছে ব্যবসায়ীদের মধ্যে।