১০ টাকায় এত বাজার পেয়ে খুশি মর্জিনা বেগম – RBC

১০ টাকায় এত বাজার পেয়ে খুশি মর্জিনা বেগম

প্রকাশ: সেপ্টেম্বর ২০, ২০২৩

আঁখি জামান স্টাফ রিপোর্টার,ঠাকুরগাঁও:

মর্জিনা বেগম। বয়স ৬০ বছর। শহরের খালপাড়ায় বাসা। মানুষের বাসায় কাজ করে সংসার চালায়। বর্তমানে জিনিস পত্রের যে দাম তাতে একসাথে এতগুলো বাজার কখনো ক্রয় করতে পারেন নাই তিনি। তার কাছে ১০ টাকায় বাজার করতে পারায় কেমন লাগছে জানতে চাইলে মুখে একরাশ হাসি নিয়ে মর্জিনা বেগম বলেন, ‘১০ টাকায় এতলা বাজার দিবে মুই বুঝাই পাউ নাই। এলা এতলা বাজার মুই একলা মানুষ কেমনে নিয়ে যাম। একসাথে কোনদিন এতলা বাজার করু নাই জীবনে।

এমরা যে ১০ টাকায় এতলা বাজার দিল আল্লাহ এমহার ভালো করুক।’ এভাবেই বিদ্যানন্দের ৫ টাকার হাট থেকে বাজার করে আরও অনেকে তাদের আনন্দ প্রকাশ করেছেন। ৫ টাকার হাটে ১০ টাকায় এতগুলো পণ্য পাওয়া যায় এটা সাধারণ খেটে খাওয়া অসহায় মানুষগুলো বিশ্বাসই করতে পারছেন না। এতগুলো বাজার পেয়ে যেন তাদের আজ ঈদের আনন্দ শুরু হয়ে গেছে। বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে ১১ টায় ঠাকুরগাঁও শহরের পৌর কমিউনিটি সেন্টারে বিদ্যানন্দ ফাইন্ডেশনের আয়োজনে ৩ শত অসহায় দুস্থ মানুষকে ১০ টাকার বিনিময়ে বাজার করার সুযোগ দেওয়া হয়। তাদের ১০ টাকার বাজারে ছিল- ৫ টাকায় মুরগী, ৫ টাকায় মাছ, ১ টাকায় ১ কেজি চাল, ৪ টাকায় ১ লিটার সয়াবিন তেল, চিনি, ডাল, লবন, নুডুলস, বিস্কুট, আলু, লাউসহ প্রায় ১৫/২০ টি আইটেম। বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান ফারুখ আহমেদের সভাপতিত্বে ৫ টাকার হাটের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি ঠাকুরগাঁওয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মামুন ভূঁইয়া। এ সময় বিদ্যানন্দের স্বেচ্ছাসেবকরা উপস্থিত থেকে সকলের মাঝে বাজার বন্টন করেন। ৫ টাকার হাট থেকে বাজার করতে পারা সমিরন বেওয়া বলেন, ‘১০ টাকায় এতলা বাজার দিছে। আইজ বেটি জামাইক মোবাইল করে আসিবা কহিম। জিনিস পত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় বেটি জামাইক ভালো মন্দ খাওয়াবা পারু না।

আইজ ১০ টাকায় এত কিছু পাইছু, এলা বেটি জামাইক ডাকে দাওয়াত খাওয়াম মুই।’ বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান ফারুখ আহমেদ বলেন, করোনার সময় থেকে আমাদের এই ৫ টাকার হাট উদ্যোগটি শুরু হয়। আমাদের এখানে যে প্রতিকি দাম রাখা হয়েছে তা ১ টাকা থেকে শুরু করে ৫ টাকা পর্যন্ত। দরিদ্র মানুষ এখানে মোট ১০ টাকার বাজার করতে পারে। বর্তমানে সব জেলায় আমরা এই আয়োজন করে চলছি। বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে এই আয়োজন আরোও বাড়ানো হবে। ঠাকুরগাঁও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মামুন ভূঁইয়া বলেন, বর্তমান বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে এমন উদ্যোগ প্রশংসার দাবি রাখে। তাদের এই বাজারের কারণে আজকে অনেক অসহায় মানুষ বাজার করে উপকৃত হবে। আজকে তারা ভালো মন্দ খেতে পারবে। তারা এমন আয়োজনকে সাধুবাদ জানায়।